অর্নিদিষ্ট কালের জন্য নিষিদ্ধ তিন লঙ্কান ক্রিকেটার।

0
5015

করোনা মহামারির কারণে একটা সময় মনে হচ্ছিল অনির্দিষ্ট কালের জন্য খেলাধুলা ই যেনো বন্ধ হয়ে যাবে হতাশা যখন পুরো পৃথিবীতে তখন  আইসিসি মাঠে খেলা পুনরায় চালু করার নতুন পন্থা গ্রহন করল এবং এর পূর্ব শর্ত হচ্ছে বায়োবাবল।

যাকে জৈব সুরক্ষা বলয় বলা হয়; এই জৈব সুরক্ষা বলয় সিস্টেম এ মাঠে ফিরলো ক্রিকেট।
এরপর থেকে যেকোনো সিরিজ বা টুর্নামেন্ট আয়োজনের পূর্ব শর্তই হয়ে গেছে বায়োবাবল নিশ্চিত করা।

জৈব সুরক্ষা বলয়ের এই সিস্টেম এর কারণে কঠিন বাস্তবতার মুখে পড়েছে ক্রিকেটাররা।কারণ সিরিজ কিংবা টুর্নামেন্ট চলাকালীন সময়ে বায়োবাবল এর বাহিরে যাওয়ার কোনো সুযোগ থাকে না। তারপর আবার সিরিজ শেষ হলে ক্রিকেটারদের থাকতে হয় কোয়ারান্টাইনে। তাই তাদের পক্ষে সম্ভব হয় না পরিবার এর সাথে দেখা করা, দীর্ঘ সময় দূরে থাকতে হয় পরিবার থেকেও। তবুও এটাকে বাস্তবতা মেনে নিয়ে খেলে যাচ্ছে ক্রিকেটাররা।

তবে সব ক্রিকেটাররাই যে নিয়ম মানছেন তা কিন্তু নয়। সীমিত ওভারের সিরিজ খেলতে ইংল্যান্ড আছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল। সেখানে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ এ হোয়াইটওয়াশের পর ওয়ানডে তে মাঠে নামার অপেক্ষায় আছে দলটি। তবে ওয়ানডে সিরিজ এর আগে আগে করোনা প্রটোকল ভেঙেছেন শ্রীলঙ্কান তিন ক্রিকেটার। জানা গেছে জৈব সুরক্ষা বলয় ভেঙে হোটেলের বাইরে গিয়ে ধুমপান করার অভিযোগ ওঠে শ্রীলঙ্কান তিন ক্রিকেটার এর বিরুদ্ধে। টুইটারে গতকাল একটি ভিডিও ভাইরাল হয় তাতে দেখা যায় কুশাল মেন্ডিস, নিরোশান ডিকওয়ালা,ও দানুশ্কা গুনাথিলাকা কে। সেই ভিডিও তে স্পষ্ট ছিলো লুকিয়ে ধুমপান করছে পেরেরা ও ডিকওয়ালা।

সেই ঘটনা তদন্তের ঘোষণা দেয় শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড, তারপর তদন্ত অভিযোগ এ সত্যতা পায় এসএলসি। যার কারণে অর্নিদিষ্ট কালের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে তিন ক্রিকেটার কে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে চলমান সিরিজ অসমাপ্ত রেখেই তাদের দেশে ফিরতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

শ্রীলংঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড জানিয়েছে পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত সব ধরনের ক্রিকেটের কার্যক্রম থেকে নিষিদ্ধ থাকবেন লঙ্কান এই তিন ক্রিকেটার।