আইপিএল এর স্বাস্থ্য বিধি সংক্রান্ত নির্দেশনা প্রকাশ

0
2424

‘আইপিএল’ খেলোয়াড় এবং ট্রেনিং স্টাফদের জন্য কি ধরনের প্রক্রিয়া ও পরীক্ষার মধ্যে দিয়ে যেতে হবে তার গাইডলাইন দিয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রশিক্ষণ শুরুর আগে তাদের এক সপ্তাহ ব্যাপী কোয়ারেন্টাইন সহ কমপক্ষে চারটি পরীক্ষার ফল নেগেটিভ আসতে হবে। সোমবার ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলির সাথে আইপিএল পরীক্ষার বিস্তারিত পদ্ধতি খসরা ‘স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর (এসওপি) ব্যাখ্যা করেছে।

এই এসওপিগুলিতে ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১০ নভেম্বরের মধ্যে ৫৩ দিনে সংযুক্ত আরব আমিরাতের তিনটি স্থানে- দুবাই, আবুধাবি ও শারজাহ টুর্নামেন্টের চলাকালীন সময়ে ভ্রমণ, থাকা এবং প্রশিক্ষণের সময় কি করা যাবে এবং কি করা যাবে না এ সম্পর্কিত বিস্তারিত গাইড লাইন দেওয়া আছে। ভারত সরকার থেকে আনুষ্ঠানিক অনুমোদনের অপেক্ষায় বিসিসিআই এখনও টুর্নামেন্টের সময়সূচি ঘোষণা করতে পারেনি।

সকল দলকে তাদের সদস্য সংখ্যা সীমিত রাখতে বলা হয়েছে এবং কেউ  ২০ আগস্টের আগে প্রবেশ করতে পারবে না। এসওপি এর মধ্যে স্কোয়াডের সকলের পরিবার সাথে নেবার অনুমতি দিয়েছে কিন্তু তাদের জৈব সুরক্ষা কেন্দ্রের মধ্যে থাকতে হবে। তবে আইপিএল বাধ্যতামূলক করেছে যে কোভিড -১৯ মহামারীর সময় ফ্রেঞ্চাইজি গুলির ঝুঁকি হ্রাস করতে এবং স্কোয়াডকে শিখানর জন্য প্রতিটি দলে একজন মেডিকেল ডাক্তার থাকতে হবে।

এসওপি-র খসড়া অনুসারে আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলিকে সুপারিশ করেছে যে তাদের সদস্যরা সংযুক্ত আরব আমিরাতে যাওয়ার আগে প্রতি স্কোয়াড দুইবার পরীক্ষা চালাবে। এই দুটি পরীক্ষা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নিয়ম অনুসারে ২৪ ঘন্টা ব্যবধানে করা হবে। তারা যে শহরে সংযুক্ত আরব আমিরাতের ফ্লাইটে উঠবেন সেই শহরে প্লেয়ার বা কোচিং / সাপোর্ট স্টাফ সদস্য জড়ো হওয়ার আগে তাদেরও করতে হবে। দ্বিতীয় পরীক্ষার ফলাফলের বৈধতা সংযুক্ত আরব আমিরাতে অবতরণের তারিখ সহ কমপক্ষে চার দিন (৯৬ ঘন্টা) থাকতে হবে।

যদি এই দুটি পরীক্ষা নেগেটিভ আসে তবেই কেবল দলে থাকা খেলোয়াড় বা কর্মীরা ট্রাভেল করতে পারবে  সংক্রামিত যে কোনও ব্যক্তিকে ভারত সরকারের নির্দেশিকা অনুসারে বাধ্যতামূলক দুই-সপ্তাহের কোয়ারেনটাইন পার করতে হবে। এর পরে, সংযুক্ত আরব আমিরাতে স্কোয়াডে যোগদানের আগে সেই ব্যক্তিকে পুনরায় দুটি পরীক্ষা নতুন করে করতে হবে এবং সব ফলাফল নেগেটিভ আসতে হবে।

স্কোয়াড সংযুক্ত আরব আমিরাতে নামার পরে, সমস্ত সদস্যদের টিম হোটেলে যাওয়ার আগে বিমানবন্দরে আরও একটি পরীক্ষা করাতে হবে। এই জায়গা থেকে, আইপিএল টেস্টিং প্রোটোকল শুরু হবে।

প্রোটোকল অনুসারে, প্রতিটি স্কোয়াডের দলীয় হোটেলে সাত দিনের জন্য একটি বাধ্যতামূলক কোয়ারেনটিনে থাকতে হবে। এই সপ্তাহের মধ্যে প্রতিটি স্কোয়াডের সদস্যদের তিনবার পরীক্ষা করা হবে – ১, ৩ ও ৬ নং দিনে নমুনা সংগ্রহ করা হবে এবং সমস্ত ফলাফল নেগেটিভ আসলে, স্কোয়াড প্রশিক্ষণ শুরু করতে পারে।

এর পরবর্তী প্রতি সপ্তাহের ৫ম দিনে পুরা টুর্নামেন্ট জুড়ে একবার করে পরীক্ষা হবে।
বিদেশী খেলোয়াড় এবং কর্মচারীদের সংযুক্ত আরব আমিরাতে পৌঁছানোর আগে শেষ ৯৬ ঘন্টা পূর্বে করা কভিড-১৯ পরীক্ষার নেগেটিভ পরীক্ষার ফলাফল সাথে থাকতে হবে।

স্থানীয় নিয়ম অনুসারে, টুর্নামেন্টের সময় আবুধাবি ভ্রমণকারী স্কোয়াডগুলিকে আগের ৪৮ ঘন্টার মধ্যে নেগেটিভ পরীক্ষার ফলাফলগুলি সাথে রাখতে হবে। আইপিএল নির্দেশিকা অনুসারে, আবুধাবি ভ্রমণের সময় যদি সাপ্তাহিক পরীক্ষার ফলাফলের মেয়াদ শেষ হয়ে যায়, সেক্ষেত্রে স্কোয়াডদের আবার নতুন করে পরীক্ষা করাতে হবে।

টুর্নামেন্ট চলাকালীন যদি কেউ পজেটিভ আসে তাহলে তিনি সহজেই অন্যকে সংক্রমিত করে তুলতে পারেন। এই বিষয় বিবেচনা করে জৈব সুরক্ষার বলয়ের বাইরে তাকে আলাদা করত হবে। সেই সংক্রামিত ব্যক্তিকে একই হোটেলের অভ্যন্তরে স্যানিটাইজড ঘরে রাখা হবে। দিকনির্দেশগুলির মধ্যে একটি অন্যতম হল হোটেলে বেশ কয়েকটি আলাদা কক্ষ থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, যেখানে স্কোয়াডের কোনও সংক্রামিত ব্যক্তি/ ব্যাক্তিবর্গ দের আলাদা বিচ্ছিন্ন করে রাখা যায়।

আইপিএল একটা বিষয় স্পষ্ট করে দিয়েছে যে টুর্নামেন্ট চলাকালীন কোনও ব্যক্তি জৈব- সুরক্ষিত বলয়ের বাইরে বের হতে পারবেন না বা অন্য কেউ সেখানে প্রবেশ করতে পারবে না। কঠোর সামাজিক দূরত্বের নীতিমালা সুপারিশ করা হয়েছে, স্কোয়াড সদস্যরা এমনকি তারা জৈব সুরক্ষা কেন্দ্রের অবস্থান করবেন তাদের মধ্যে একে অন্যের সাথে যোগাযোগ রাখা থেকে নিরুৎসাহিত করা সহ হোটেলের কক্ষগুলির মধ্যে চলাফেরা করতে নিরুৎসাহিত করেছে। স্কোয়াড সদস্যদের হোটেলগুলিতে তাদের ঘরের বাইরে মাস্ক পরতে এবং কোনও অপ্রয়োজনীয় চলাচল এড়িয়ে চলতে বলা হয়েছে।

  •  কোনও আহত খেলোয়াড়কে যদি এক্স-রে বা স্ক্যানের জন্য কোনও হাসপাতালে নেওয়ার প্রয়োজন হয়, তবে নির্দেশিকা অনুযায়ী যে কোন বহিরাগতদের সাথে সীমিত আকারে সংযোগ স্থাপন করার জন্য বলা হয়েছে।গাইডলাইন অনুযায়ী আটটি দল পৃথক হোটেলে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ফ্র্যাঞ্চাইজিদের স্কোয়াডগুলির জন্য কেবল একটি হোটেল বা রিসর্ট বুক করতে বলা হয়েছে যেখানে বাইরের কোন লোক থাকবে না। যদি তা সম্ভব না হয়, তবে আইপিএল তাদের স্কোয়াডের জন্য আলাদা, প্রবেশ ও প্রস্থানের পথ সম্বোলিত  কোথাও থাকার পরামর্শ দিয়েছে।