আইপিএল এ ইংল্যান্ড অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়দের কোন ছাড় নয়।

0
2863

অস্ট্রেলিয়া এবং ইংল্যান্ড বর্তমানে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলছে ইংল্যান্ডে।  অস্ট্রেলিয়া এবং ইংল্যান্ডের খেলোয়াড়রা আইপিএল এ যোগ দেবার জন্য ১৭ সেপ্টেম্বর সংযুক্ত আরব আমিরাতে পৌছুবে। তাদের উড়িয়ে আনার  জন্য ফ্রাঞ্চ্যাইজিগুলি পৃথক চাটার্ড বিমানের ব্যবস্থা করেছে। কিন্তু এক্ষেত্রে তারা কভিড-১৯ এর জন্য গৃহীত যে জৈব সুরক্ষার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তাতে কোন ধরনের ছাড় দেওয়া হবে না।

আরসিবি চেয়ারম্যান সঞ্জীব চুরিওয়ালা সহ কিছু ফ্র্যাঞ্চাইজি কর্মকর্তার যুক্তি ছিল যে, খেলোয়াড়রা যেহেতু ইতিমধ্যে একটি জৈব সুরক্ষা কেন্দ্রের মধ্যে ছিল এবং একটি চার্টার বিমানের মাধ্যমে সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিয়ে আসা হবে, তাই নিয়ম শিথিল করার সুযোগ থাকতে পারে।

এই প্রোটোকল এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সুরক্ষা ব্যবস্থাগুলি মাথায় রেখে আইপিএল এর শিডিউল তৈরি করা হয়েছিল তাই ইংল্যান্ড থেকে আগত সমস্ত খেলোয়াড়কে সংযুক্ত আরব আমিরাতে পৌঁছানোর পরে ছয় দিনের জন্য আলাদা থাকতে হবে। লিগের স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং পদ্ধতি অনুসারে, দলে যোগদানের জন্য যোগ্য হতে তাদের ১, ৩ এবং ৬ষ্ঠ  দিনে তিন বার কভিড-১৯ এর পরীক্ষা করতে হবে এবং এর ফলাফল নেগেটিভ আসতে হবে।

কোভিড -১৯ এর পরীক্ষার জন্য খেলোয়াড়দের তিনটি নেগেটিভ ফলাফল আসলে, ২৪ শে সেপ্টেম্বর থেকে খেলায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। ততদিনে মুম্বই ইন্ডিয়ানস এবং চেন্নাই সুপার কিংস এর  নূন্যতম দু’টি এবং অন্য দলগুলোর একটি করে  খেলা হয়ে যাবে।

স্টিভ স্মিথের নেতৃত্বাধীন রাজস্থান রয়্যালস এবং তাদের দলে জস বাটলার, জোফরা আর্চার এবং অ্যান্ড্রু টাইয়ের মতো খেলোয়াড়রা রয়েছে তারাই সম্ভবত সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। অন্যদিকে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের নেতৃত্ব রয়েছে ডেভিড ওয়ার্নার এবং তার দলে জনি বেয়ারস্টোও রয়েছেন। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু দলের চারজন খেলোয়াড় ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া সিরিজে খেলছে।

অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের যে সব খেলোয়াড় কারনে যেসব দলের ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে-

রাজস্থান রয়্যালস- স্টিভেন স্মিথ, অ্যান্ড্রু টাই, জস বাটলার, সাম কুরান, যোফরা আর্চার।
আরসিবি- এ্যরন ফিঞ্চ, জোশুয়া ফিলিপ, এ্যডাম জাম্পা, মইন আলী।
হায়দরাবাদ- ডেভিড ওয়ার্নার, জনি বেয়ারস্টো, মিচেল মার্শ।
কেকেআর- প্যাট কামিন্স, ইয়েন মর্গান, টম বেনটন।
কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব- গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, ক্রিস জর্ডান।
দিল্লি ক্যাপিট্যাল- মার্কস স্টোইনিস, এ্যলেক্স ক্যরি।
চেন্নাই সুপার কিংস- জস হ্যাজেলউড, সাম কুরান।
মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স- কেন খেলোয়াড়  নেই।