এক যুগ পর বিদেশে টেস্ট সিরিজ জয় বাংলাদেশের

0
992

হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে একমাত্র টেস্টে জিম্বাবুয়েকে ২২০ রানে হারিয়ে বড় ব্যবধানে জিতলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। টাইগারদের সর্বশেষ টেস্ট জয় ছিলো ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২০১৮ সালে ঘরের মাটিতে।

বাংলাদেশে টেস্টে ১৫তম আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১৮০ তম জয়। বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সমান ৭ জয় করে থাকলেও এখন বাংলাদেশ লিডে জয় সংখ্যা ৮। এটি বাংলাদেশের ৬ষ্ঠ টেস্ট সিরিজ জয় বিদেশে দ্বিতীয়। এক যুগ পর বিদেশের মাটিতে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ তাও ২২০ রানের ব্যবধানে।

আজ (রোববার) ৫ম দিনের খেলা শুরু করে জিম্বাবুয়ে তখন তাদের হাতে উইকেট ছিলো ৭টি, এই ৭টি উইকেট থাকার কারণ বাংলাদেশের দেওয়া ৪৭৭ রানের বিশাল লক্ষ্য ব্যাটিং করতে নেমে গতকাল (শনিবার) রীতিমতো ঝড় তুলেন অধিনায়ক ব্রেন্ডন টেইলর। কিন্তু ৩ উইকেট হারিয়ে বসেন ১৪১ রান তুলতেই। ৩ উইকেটে ১৪১ রান নিয়ে ৫ম ও শেষ দিনে ব্যাটিংয়ে নামে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল,নাইটওয়াচম্যান ডোনাল্ড টিরিপানোকে নিয়ে প্রথম ঘন্টায় বাংলাদেশকে হতাশায় ডুবিয়েছেন আগের দিনের আরেক অপরাজিত ব্যাটার ডিওন মের্য়াস।

তবে টাইগারদের হতাশার কারণ বেড়েছে ফিল্ডারদের পিচ্ছিল হাতের কল্যাণেই, ১ঘন্টায় পরপর তিনবার ক্যাচ মিস করে জীবন দিয়েছেন জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যানদের। ৫ম দিনে জিম্বাবুয়েকে প্রথম ধাক্কা দেওয়ার সুযোগ তৈরি করেছিলেন তাসকিন কিন্তু সুযোগ হাতছাড়া করেছেন তাসকিন নিজেই। রীতিমতো গলার কাটা হয়ে দাড়িয়ে ছিলো ডোনাল্ড টিরিপানো সেই টিরিপানোকেও ফেরানোর সুযোগ পেয়েছিলো বাংলাদেশ কিন্তু সাকিব আল হাসান করে বসেন ভুল। ক্যাচ মিস করেন টিরিপানোর মেহেদী মিরাজ কে তার আরেকটি উইকেট থেকে বঞ্চিত করলেন  এই বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

ফিল্ডারদের ব্যর্থতার পর ড্রিংকস বিরতি থেকে ফিরে বাংলাদেশকে স্বস্তি এনে দেন মেহেদী হাসান মিরাজই, ৮৮ বল থেকে ২৬ রান করা সেই ডিওন মের্য়াসকে ফেরত পাঠান সাজঘরে। একই ওভারে টিমোসেন মারুমাকে শূন্য হাতে ফেরান মিরাজ। পরের ওভারে রয় কাইয়াকে শূন্য হাতে ফেরান তাসকিন আহমেদ।

রেভিস চাকাভাকে ১ রানে ফিরিয়ে জিম্বাবুয়ের লড়াই সম্ভাবনারটুকুও ইতি টেনে দেন স্পিডস্টার তাসকিন আহমেদ। ১৫৯ রানে ৩ উইকেটের জিম্বাবুয়ে ৫ রানের ব্যবধানে ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলে। ভিক্টোর নিয়াচিকে দলীয় ১৭১ রানে বোল্ড করলেও নো বলের কারণে উইকেট বঞ্চিত হন তাসকিন। তারপর আর কোন উইকেট না হারিয়ে মধ্যাহ্ন বিরতিতে যায় জিম্বাবুয়ে।

বিরতি থেকে ফিরে সেই ভিক্টর নিয়াচিকেই আউট করেন তাসকিন এবং টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো ৪ উইকেট নেন বাংলাদেশী এই পেসার।

তবে আজকের জয়ের পথটা যতটা সহজ করে দিয়েছিল তাসকিন এবং মেহেদী বাংলাদেশী ফিল্ডাররা ঠিক ততটাই কঠিন করেছেন শেষ পর্যন্ত গত কালকের নাইটওয়াচম্যান ডোনাল্ড টিরিপানো ও ব্লেসিং মুজরাবানি। অনেকক্ষণ ভুগিয়েছে বাংলাদেশী বোলারদের।

টেস্ট ক্যারিয়ারের ২য় ফিফটি তুলে নেন ডোনাল্ড টিরিপানো, ১৪৪ বলে ৬ চারে ৫২ রান করা টিরিপানোকে ফেরত পাঠান সাজঘরে বাংলাদেশী পেসার এবাদত হোসেন। কিন্তু শেষ লড়াই লড়লেন মিরাজ এনগ্রাভাকে আউট করে শেষে বাংলাদেশের জয় নিশ্চিত করেন মিরাজ।

দারুণ লড়াই করা জিম্বাবুয়ের ইনিংস থামে ২৫৬ রানে। বাংলাদেশ জয় পায় ২২০ রানের। তাসকিন ও মিরাজ ৪টি করে উইকেট নেন, ১টি করে উইকেট পেয়েছেন সাকিব ও এবাদত।

সংক্ষিপ্ত স্কোর –

বাংলাদেশ ; ৪৬৮/১০ এবং ২৮৪/১, ৬৭.৪ ওভার  (নাজমুল হোসেন শান্ত ১১৭*, সাদমান ইসলাম ১১৫*,ৎসাইফ হাসান ৪৩, রিচার্ড এনগ্রাভা ১/৩৬)।

জিম্বাবুয়ে: ২৭৬/১০ এবং ২৫৬/১০, ৯৪.৪ ওভার  (ব্রেন্ডন টেইলর ৯২, ডোনাল্ড টিরিপানো ৫২, ব্লেসিং মুজরাবানি ৩০*, ডিওন মেয়ার্স ২৬, মিল্টন শুম্ভা ১১, তাসকিন আহমেদ ৪/৮২, মেহেদী হাসান মিরাজ ৪/৬৬)।