ক্ষুব্ধ ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক কাইরন পোলার্ড

0
606

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি-টুয়েন্টি খেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ যেখানে ৩-২ এ সিরিজ জিতে দক্ষিণ আফ্রিকা। জয়ের ভালো সম্ভাবনা তৈরি করে ও হেরে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাই খানিকটা বিরক্ত হয়েছেন ইন্ডিজ কাপ্তান ক্ষুব্ধ সুরে তিনি প্রশ্ন তোলেন ব্যাটসম্যানদের মানসিকতা নিয়ে‌ এর সাথে পরামর্শও দেন তিনি বলেন ক্রিকেট খেললে সিরিয়াসলি খেলা উচিত মূলত তিনি সিরিয়াস ক্রিকেট খেলার পরামর্শদেন।

গ্রানাডায় পঞ্চম টি-টোয়েন্টি তে মাঠে নামার আগে ২-২ ব্যবধানে সিরিজে সমতায় ছিলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ শেষ ম্যাচটা জিতলেই সিরিজ নিজেদের নামে করে নিতে পারতো কিন্তু শেষ ম্যাচে হারের ভরা ডুবি ডুবিয়ে দিয়েছে উইন্ডিজদের সিরিজ।

ম্যাচে আগে ব্যাট করা দক্ষিণ আফ্রিকা ১৬৮ রান সংগ্রহ করে জবাব দিতে নেমে ২৫ রানের বড় ব্যবধানে হেরে গেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

এক পর্যায়ে খেলা দেখে মনে হচ্ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের দখলে চলে গেছে ম্যাচ ১০০% তারা জিতে যাবে কিন্তু ক্রিকেট অনিশ্চিয়তার খেলা কখন কে রং পাল্টায় বলা যায় না। একটি বোলার বা একটি ব্যাটসম্যান যথেষ্ট সামনের দলকে হারানোর জন্য যদি সেটা তার দিন থাকে। আবহাওয়া পরিস্থিতি ভাগ্য সহায় হলেই বাজিমাত করে দিতে পারে বিপক্ষীয় দলকে হারিয়ে দিতে পারে যেমন আফ্রিকান বোলাররা।

সহজ সমীকরণ ওয়েস্ট ইন্ডিজের তারকা সমৃদ্ধ শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপ মোটেও কঠিন হওয়ার কথা ছিলো না ১২০ বলে ১৬৯ রান করতে পারবে না ক্যারিবিয় এই ব্যাটিং লাইনআপ তা কি কেউ ভেবেছিলো?

সহজ এই সমীকরণকে কঠিন বানিয়েছে তারা প্রথম উইকেট পরে ৮ ওভারে তখন তাদের দলীয় রান ৬৮ হাতে ছিলো ১০টা উইকেট বাকি ১২ ওভারে প্রয়োজন ছিলো ১০১ রান। ওভার প্রতি রান রেট ১০ এর ও কম। ক্রিজে ছিলো তখন এভিন লুইস ও টি-টোয়েন্টি ইতিহাসের সেরা ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইল। কিন্তু এই সহজ সমীকরণ গুলো কঠিন বানিয়ে হেরে গেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলকে জয় এনে দিতে পারেনি গেইল- রাসেলরা।

৯-১৫ ওভারে কোনোরকম ৩০ রান তুলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ১২ ওভারে ১০১ রান সমীকরণ শেষে ২ ওভারে ৩০ এ নেমে আসে। যে সমীকরণ মেলানোর আশেপাশেও যেতে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তারপর হলো ক্রিকেটীয় নাটক শেষ ২ ওভারে ৩উইকেট হারিয়ে মাত্র চার রান যোগ করতে পারে তারা এবং সেই সাথে শেষ হয়ে যায় তাদের জয়ের আসা এবং ২৫ রানে হেরে যায় তারা।

এই হারের পর অধিনায়ক পোলার্ড বার বার মনে করিয়ে দেন সামনে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, “আমার বারবার এই ধরনের ম্যাচ দেখে মনে হয় আমরা অতীতের ভুল থেকে কোন শিক্ষা নিচ্ছি না। এটা হলো ব্যর্থ হওয়ার সংজ্ঞা। আমাদের কে এটা দেখাতে হবে যে আমরা আমাদের ক্রিকেট নিয়ে সিরিয়াস, আমরা যে আমাদের খেলাতে উন্নতির চেষ্টা করছি তা যেনো আমাদের খেলার মধ্যে দিয়ে উঠে আসে।সামনেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এটা আমাদের সমর্থকদের কথা মাথায় রেখেই আমাদের করতে হবে।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ হারে হতাশ হলেও সেটা নিয়ে বসে থাকার সুযোগ নেই কাইরন পোলার্ডদের। কারণ এক সপ্তাহেরও কম ব্যবধানে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৫ ম্যাচের টি-টুয়েন্টি সিরিজে মাঠে নামতে হবে তাদের। ১০ ই জুলাই থেকে শুরু হবে দুই দলের এই লড়াই।

সিরিজ হারের পর এখন কতটা প্রস্তুত ক্যারিবিয়রা?