প্রধানমন্ত্রীর ফোনেও রাজি হয়নি নিউজিল্যান্ড

0
1600

দীর্ঘ নির্বাসনের পর অবশেষে ধীরে ধীরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরানোর প্রক্রিয়া ভালো ভাবেই এগিয়ে নিচ্ছিলো পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি), ২০০৯ সালের শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের উপর সন্ত্রাসী হামলার পর দেশটি সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছিলো নিজেদের নিরাপদ প্রমাণে।

পিসিবির সেই চেষ্টার ফলও মিলতে শুরু করেছিলো, জিম্বাবুয়ে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, বাংলাদেশের মতো দলগুলোর পর পাকিস্তান সফরের জন্য রাজি করে ফেলেছিলো নিরাপত্তা নিয়ে বেশ খুতখুতে স্বভাবের নিউজিল্যান্ড, ইংল্যান্ডের মতো দেশগুলোকেও।

১৮ বছর পর পাকিস্তানে সফরে গেছিলো নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দল, আজ ৩ ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে মাঠে নামারও কথা ছিল কিউইদের। কিন্তু ম্যাচ শুরুর আগে জানা যায় মাঠেই আসেনি দুই দলের ক্রিকেটাররা, বলা হচ্ছিলো করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ৩ ক্রিকেটার।

কিন্তু করোনা আক্রান্তের বিষয়টিকে ম্লান করে দিয়ে পাকিস্তানের ক্রিকেটকে নাড়িয়ে দেওয়ার মতো এক বিবৃতি প্রদান করে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট (এনজেডসি), তারা জানায় নিরাপত্তা জনিত কারণে সিরিজ না খেলেই দেশে ফিরে যাবে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দল। তাদের এই ঘোষণায় আবার শঙ্কায় পড়ে গেছে পাকিস্তানে পুরোপুরি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরানোর প্রক্রিয়া।

এনজেডসির এমন সিদ্ধান্ত স্বাভাবিক ভাবেই বেশ হতাশ পিসিবি, নিউজিল্যান্ডকে সফর স্থগিত না করতে চেষ্টা করেন খোদ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও। তিনি নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্নকে ফোন করে আশস্ত করারও চেষ্টা করেন, কিন্তু কিছুতেই কোন কাজ হয়নি।

পিসিবি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, “পিসিবি এবং পাকিস্তান সরকার সফরকারি সব দলের জন্য প্রশ্নাতীত নিরাপত্তা ব্যবস্থা দিয়ে থাকে। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের জন্যও আমরা সেই ব্যবস্থাই রেখেছি।

বিবৃতিতে আরও জানানো হয়েছে, “প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন এবং জানিয়েছেন, আমাদের গোয়েন্দা বিভাগ বিশ্বের অন্যতম সেরা। সফরকারি দলের জন্য কোনো ধরনের নিরাপত্তা শঙ্কা নেই এখানে।”

শেষ মুহুর্তে এসে এনজেডসির এমন সিদ্ধান্তঅএ হতাশাজনক উল্লেখ করে জানানো হয়েছে, “নিউজিল্যান্ডের নিরাপত্তা কর্মকর্তারাও আমাদের সরকারের নেয়া নিরাপত্তা ব্যবস্থায় সন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন। পিসিবি নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী খেলাগুলো চালিয়ে যেতে চেয়েছিল। কিন্তু শেষ মিনিটে এভাবে সফর গুটিয়ে নেয়া পাকিস্তান এবং বিশ্বের সকল ক্রিকেট ভক্তের জন্যই হতাশাজনক ব্যাপার।”