ফরাসি লিগ ওয়ানে বোতল ছোড়া ছুঁড়ি নিয়ে লঙ্কাকাণ্ড

0
986

গতকাল রাতে ফরাসি লিগ ওয়ানে দেখা মিললো বাজে এক দৃষ্টান্তের। নিসের মাঠে ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে ১-০ গোলে পিছিয়ে পড়ে মার্শেই। ওই গোল খাওয়া, বারবার আক্রমণ করে গোল না পাওয়ায় ভীষণ ক্ষুব্ধ ছিলেন মার্শেই ফুটবলাররা। তার উপর কাটা গায়ে লবণ ছিটায় নিসের সমর্থকরা। স্বাগতিক দর্শকদের বাজে আচরণ মানতে পারেননি মার্শেই ফুটবলাররা। ম্যাচের ৭৫ মিনিটেই দর্শক-ফুটবলার দ্বন্দ্ব বেধে যায়।

মার্শেই খেলোয়াড়দের ওপর প্রতিপক্ষ নিসের উগ্রপন্থি সমর্থকদের বোতল ছোঁড়া, হামলা, চরম হাতাহাতিতে ছড়ানো উত্তেজনায় এক পর্যায়ে নিস সমর্থকরা মাঠে নেমে গেলে শেষ অবধি ম্যাচই পণ্ড ঘোষণা করতে হয় রেফারিকে।

এরপর আর মাঠে নামেনি মার্শেই। এর মূল্য গুরুত্বপূর্ণ তিন পয়েন্টে চুকাতে হয়েছে দলটিকে। ম্যাচ বাতিল হয়ে যাওয়ায় লিগ ওয়ানের নিয়ম অনুযায়ী নিসকে ৩-০ গোলে জয়ী ঘোষণা করা হয়। তবে ম্যাচ আবার খেলতে রাজি হওয়া না হওয়া নিয়েও দুই দলের মধ্যে এখনও কথার লড়াই চলছে। দুই পক্ষই একে অপরকে দোষ দিচ্ছে! ইতোমধ্যে, এই ঘটনায় দুই ক্লাবকে কারণ দর্শাতে বলেছে ফরাসি লিগ কর্তৃপক্ষ (এলএফপি)।

এই ঘটনায় নিন্দার ঝড় এতদূর গড়িয়েছে যে, এই নিয়ে কথা বলতে হয়েছে ফরাসি মন্ত্রীকেও। কোন ধরনের টালবাহানা নয়, যারা মাঠে এই নোংরা ঘটনার সঙ্গে জড়িত তাদের সবার উপর নিষেধাজ্ঞা চেয়েছেন ফ্রান্সের ক্রীড়ামন্ত্রী রোখসানা মাহাসিনেয়ানুর।

বিএফএম টিভিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ঘটনায় জড়িত সমর্থকদের তীব্র সমালোচনা করে মন্ত্রী বলেছেন, “এসব উগ্র সমর্থকদের একেবারেই মাঠে প্রবেশ করতে না দেওয়া উচিত। এই ঘটনা খেলাধুলা এবং ফুটবলের জন্য অপমানজনক। যারা এই ঘটনার জড়িত তাদের জন্য নিষেধাজ্ঞার শাস্তি অপেক্ষা করছে।”

এই ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি চেয়েছেন নিস শহরের মেয়র ক্রিস্তিয়ঁ এস্ত্রোসি। নিজেদের অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে তিনি লিখেছেন, “এই ধরনের সহিংসতা অগ্রহণযোগ্য। ফরাসি লিগ কর্তৃপক্ষের উচিত ঘটনার সাথে কারা জড়িত তা বের করে শাস্তি নিশ্চিত করা।”

চলতি মৌসুমে লিগ ওয়ানে মার্শেইর ম্যাচে এই ধরনের ঘটনা নতুন নয়। দুই সপ্তাহ আগে লিগের প্রথম ম্যাচে মপঁলিয়ের মাঠে মার্শেইয়ের ৩-২ গোলে জেতার ম্যাচেও প্রতিপক্ষ সমর্থকেরা মাঠে মার্শেইয়ের খেলোয়াড়দের দিকে বোতল ছুড়ে মারায় ম্যাচ কিছুক্ষণ বন্ধ থাকে। সেদিন মপঁলিয়ের স্তাদ মোসোঁতে ৮৯ মিনিটে মার্শেইয়ের বদলি খেলোয়াড় ভালেন্তিন রঁজিয়েরের মাথায় বোতল লাগায় ম্যাচ থেমে গিয়েছিল। যদিও শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি শেষ করা সম্ভব হয়েছিল।