বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে কোড অফ কন্ডাক্ট ভেঙ্গে অভিযুক্ত তিন খেলোয়াড়  

0
362

গত ৪ এপ্রিল বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের প্লে-অফে ইউএসএ এবং জার্সির মধ্যকার খেলা ছিল। এই ম্যাচে আইসিসির আচরণবিধি লঙ্ঘনের জন্য তিন খেলোয়াড়কে শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

ইউএসএ এবং জার্সি’র মধ্যে মঙ্গলবার উইন্ডহোকে দারুন একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলা চলে এই ম্যাচের ভাগ্য কোন দলের পক্ষে যাবে সেটা খুব অনিশ্চিত ছিল। ২৩১ রানের তাড়া করে, জার্সি ইউএসএ-র বিরুদ্ধে কয়েকবার চলকের অসনে অধিষ্ঠিত হয়ে ছিল। এই ম্যাচে যদি জয় লাভ করত তাহলে তারা ওয়ার্ল্ড কাপের জন্য কোলিফাই করত।

ইউএসএ শেষ পর্যন্ত তাদের স্নায়ু ধরে রাখে এবং আলী খানের অনবদ্য বোলিং স্পেলে (৭/৪২) ২৫ রানে জয় পেতে সহায়তা করে।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের হাই-ভোল্টেজ ম্যাচে দুই দলের তিনজন খেলোয়াড় – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আলি খান এবং জসদীপ সিং এবং জার্সির এলিয়ট মাইলস -কে আইসিসির আচরণবিধির লেভেল ১ লঙ্ঘনের জন্য সাজা প্রাপ্ত হয়েছে৷

আলী খানকে খেলোয়াড় এবং প্লেয়ার সাপোর্ট কর্মীদের জন্য আইসিসি কোড অফ কন্ডাক্টের ধারা ২.৫ লঙ্ঘনের জন্য দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। তিনি কোন আন্তর্জাতিক ম্যাচ চলাকালীন কোন একটি উইকেট পতনের পর, এমন কোন “ভাষা অথবা, অঙ্গভঙ্গি প্রয়োগে প্রতিপক্ষ ব্যাটারকে অবমাননা করে বা ব্যাটার থেকে আক্রমণাত্মক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে” এমন ধারায় অভিযুক্ত হয়েছেন।

এই পেসার একটি ডিমেরিট পয়েন্ট পেয়েছেন যার কারনে তিনি পরবর্তী দুটি ম্যাচ খেলতে পারবেন না, সেটি হয় টি-টোয়েন্টি বা ওডিআই, যেটি প্রথমে আসে। এই ইউএসএ ক্রিকেটার এর আগে তিনটি ডিমেরিট পয়েন্ট পেয়েছিলেন। ২৪ মাসের মধ্যে যদি কোন খেলোয়াড় মোট চারটি ডিমেরিট পয়েন্ট পায় তাহলে কোডের ৭.৬ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দুই ম্যাচের জন্য সাসপেন্ড হবেন এর পাশাপাশি তার ম্যাচ ফির ১৫% জরিমানাও করা হয়েছে।

 

তার সতীর্থ জসদীপ সিংকে তার ম্যাচ ফির ৩০% জরিমানা করা হয়েছে এবং কোডের ২.১২ অনুচ্ছেদ লঙ্ঘনের জন্য দুটি ডিমেরিট পয়েন্ট দেওয়া হয়েছে, যা কোন আন্তর্জাতিক ম্যাচ চলাকালীন “একজন খেলোয়াড়, প্লেয়ার সাপোর্ট পার্সোনাল, আম্পায়ার, ম্যাচ রেফারি বা অন্য কোন ব্যক্তির সাথে (একজন দর্শক সহ) অগ্রহনযোগ্য শারীরিক সংযোগ স্হাপন এর সাথে সম্পর্কিত।

জার্সির এলিয়ট মাইলসকে তার ম্যাচ ফি এর ১৫% জরিমানা করা হয়েছে এবং কোডের ধারা ২.৩ লঙ্ঘনের জন্য একটি ডিমেরিট পয়েন্ট দেওয়া হয়েছে, যা “আন্তর্জাতিক ম্যাচের সময় শ্রবণযোগ্য অশ্লীল শব্দ প্রয়োগের সাথে” সম্পর্কিত।

অনফিল্ড আম্পায়ার অ্যান্ড্রু লো এবং ক্লস শুমাখার এবং তৃতীয় আম্পায়ার ডেভিড ওধিয়াম্বো দ্বারা আনিত অভিযোগ স্বীকার করার কারনে কোনও আনুষ্ঠানিক শুনানির আর প্রয়োজন পরেনি।

গত ৪ ইউএসএ এবং জার্সির মধ্যকার খেলা ছিল। এই ম্যাচে আইসিসির আচরণবিধি লঙ্ঘনের জন্য তিন খেলোয়াড়কে শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

ইউএসএ এবং জার্সি’র মধ্যে মঙ্গলবার উইন্ডহোকে দারুন একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলা চলে এই ম্যাচের ভাগ্য কোন দলের পক্ষে যাবে সেটা খুব অনিশ্চিত ছিল। ২৩১ রানের তাড়া করে, জার্সি ইউএসএ-র বিরুদ্ধে কয়েকবার চলকের অসনে অধিষ্ঠিত হয়ে ছিল। এই ম্যাচে যদি জয় লাভ করত তাহলে তারা ওয়ার্ল্ড কাপের জন্য কোলিফাই করত।

ইউএসএ শেষ পর্যন্ত তাদের স্নায়ু ধরে রাখে এবং আলী খানের অনবদ্য বোলিং স্পেলে (৭/৪২) ২৫ রানে জয় পেতে সহায়তা করে।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের হাই-ভোল্টেজ ম্যাচে দুই দলের তিনজন খেলোয়াড় – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আলি খান এবং জসদীপ সিং এবং জার্সির এলিয়ট মাইলস -কে আইসিসির আচরণবিধির লেভেল ১ লঙ্ঘনের জন্য সাজা প্রাপ্ত হয়েছে৷

আলী খানকে খেলোয়াড় এবং প্লেয়ার সাপোর্ট কর্মীদের জন্য আইসিসি কোড অফ কন্ডাক্টের ধারা ২.৫ লঙ্ঘনের জন্য দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। তিনি কোন আন্তর্জাতিক ম্যাচ চলাকালীন কোন একটি উইকেট পতনের পর, এমন কোন “ভাষা অথবা, অঙ্গভঙ্গি প্রয়োগে প্রতিপক্ষ ব্যাটারকে অবমাননা করে বা ব্যাটার থেকে আক্রমণাত্মক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে” এমন ধারায় অভিযুক্ত হয়েছেন।

এই পেসার একটি ডিমেরিট পয়েন্ট পেয়েছেন যার কারনে তিনি পরবর্তী দুটি ম্যাচ খেলতে পারবেন না, সেটি হয় টি-টোয়েন্টি বা ওডিআই, যেটি প্রথমে আসে। এই ইউএসএ ক্রিকেটার এর আগে তিনটি ডিমেরিট পয়েন্ট পেয়েছিলেন। ২৪ মাসের মধ্যে যদি কোন খেলোয়াড় মোট চারটি ডিমেরিট পয়েন্ট পায় তাহলে কোডের ৭.৬ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দুই ম্যাচের জন্য সাসপেন্ড হবেন এর পাশাপাশি তার ম্যাচ ফির ১৫% জরিমানাও করা হয়েছে।

তার সতীর্থ জসদীপ সিংকে তার ম্যাচ ফির ৩০% জরিমানা করা হয়েছে এবং কোডের ২.১২ অনুচ্ছেদ লঙ্ঘনের জন্য দুটি ডিমেরিট পয়েন্ট দেওয়া হয়েছে, যা কোন আন্তর্জাতিক ম্যাচ চলাকালীন “একজন খেলোয়াড়, প্লেয়ার সাপোর্ট পার্সোনাল, আম্পায়ার, ম্যাচ রেফারি বা অন্য কোন ব্যক্তির সাথে (একজন দর্শক সহ) অগ্রহনযোগ্য শারীরিক সংযোগ স্হাপন এর সাথে সম্পর্কিত।

জার্সির এলিয়ট মাইলসকে তার ম্যাচ ফি এর ১৫% জরিমানা করা হয়েছে এবং কোডের ধারা ২.৩ লঙ্ঘনের জন্য একটি ডিমেরিট পয়েন্ট দেওয়া হয়েছে, যা “আন্তর্জাতিক ম্যাচের সময় শ্রবণযোগ্য অশ্লীল শব্দ প্রয়োগের সাথে” সম্পর্কিত।

অনফিল্ড আম্পায়ার অ্যান্ড্রু লো এবং ক্লস শুমাখার এবং তৃতীয় আম্পায়ার ডেভিড ওধিয়াম্বো দ্বারা আনিত অভিযোগ স্বীকার করার কারনে কোনও আনুষ্ঠানিক শুনানির আর প্রয়োজন পরেনি।