ব্যটলারের শেষ ম্যাচ হতে পারত পাকিস্তান বনাম ইংল্যান্ডের প্রথম টেষ্ট

0
1242

এমিরেটসে ওল্ড ট্রাফোর্ডে জস বাটলার ব্যাট হাতে করেছেন ম্যাচ বাঁচানো ৭৫ রান তার ফলে পাকিস্তানের সাথে প্রথম টেষ্টে ৩ উইকেটে জয় পায় ইংল্যান্ড। কিন্তু তিনি দলে তার অবস্থান সম্পর্কে খুবই সন্দিহান ছিলেন।

এই টেষ্টের প্রথম ইনিংসে গ্লভস হাতে তার খুব  প্রদর্শনী খুব দূর্বল ছিল। তিনি প্রথম ইনিংসে তিনটি ক্যাচ ছেড়েছেন তার মধ্যে দুটি পাকিস্তান ওপেনার শন মাসুদের। পরবর্তীতে শন মাসুদ করে দেন ইনিংসের ব্যবধান তৈরি করা শত রান। তিনি স্বীকার করেন যদি ঐ সুযোগ দুটি গ্রহণ করতে পারতেন তাহলে চতুর্থ ইনিংসে ইংল্যান্ডের রান তাড়া করা আরো সহজ হতো।

তিন মনে করেন ব্যাট হাতে তখন আপনি রান করবেন আপনাকে সবসময় স্বস্তি দিবে। আর ইংল্যান্ড এমন একটি দল যেখানে সবসময় যে কাউকে পারফরমেন্স দিয়ে টিকে থাকতে হবে। প্রথম ইনিংসে খারাপ পারফরম্যান্সের পর তিনি দলে তার নিজের জায়গা নিয়ে শংকিত ছিলেন। তিনি মনে করেন যদি তিনি রান করতে না পারতেন এটি হয়ত তার শেষ ম্যাচ হতে পারত।

বাটলার ও ক্রিস ওকসের সাথে ৬ষ্ঠ উইকেটে দ্রুত সময়ে ১৩৯ রানের জুটি গড়েন যা ইংল্যান্ডকে ৫ উইকেটে ১১৭ রানের ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থার থেকে ম্যাচে ফিরতে হয় সাহায্য করে। তার করা ৭৫ রান এই ম্যাচের ভাগ্য ইংল্যান্ডের দিকে ঘুরিয়ে দেয়।

ম্যাচের একটা পর্যায়ে যখন পাকিস্তানের জয় শুধুমাত্র একটি আনুষ্ঠানিকতা বলে মনে হয়েছিল, কিন্তু বাটলার এবং ওকস যে আক্রমণাত্মক ব্যাটিং এর সাথে লড়াই করেছে তা পাকিস্তান দলকে ম্যাচ থেকে দূরে ঠেলে দেয়। ৬ষ্ঠ উইকেট জুটির দৃঢ় ব্যাটিং সফরকারিদের একদম ব্যাকফুটে ঠেলে দেয় এবং ম্যাচের এমন একটি অবস্থানে নিয়ে যায় যেখান থেকে তারা আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি। পাকিস্তানের দারুন বলিং আক্রমণ বিভাগের বিরুদ্ধে, বাটলার এবং ওকস ওভার প্রতি চার রান করে সংগ্রহ করে। বাটলার  আর ওকসের ব্যাটিং এজাস বাউলে ১৩ আগষ্ট থেকে দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হবার আগে ইংল্যান্ডকে ১-০ সিরিজে এগিয়ে নিয়ে যেতে সহায়তা করে।