মারনাস লাবুশেনঃ মি. কনকাশন নাকি সুপার সাকসেশন?

0
1197
DUBAI, UNITED ARAB EMIRATES - OCTOBER 05: Marnus Labuschagne of Australia trains during an Australian nets session at ICC Academy on October 05, 2018 in Dubai, United Arab Emirates. (Photo by Ryan Pierse/Getty Images)

লোকে বলে,
“সৎ সঙ্গে সর্গবাস,
অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ!”
ব্যক্তিজীবনে বহুল ব্যবহৃত এই কথাটা পুরোপুরি খাটে বাইশগজে, আরো খোলাসা করে বললে অজি ব্যাটসম্যান মার্নাস লাবুশেন এই কথার একদম যোগ্য চরিত্র!

২০১৯, অ্যাশেজ সিরিজের ২য় টেস্ট!
প্রথম ইনিংসে ৯২ রান করে আউট হওয়া ইনফর্ম ব্যাটসম্যান টেস্টের রাজা স্টিভেন স্মিথ দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করতে পারবেন না। প্রথম ইনিংসে জোফরা আর্চারের বলে মাথায় আঘাত পাওয়া স্মিথ চলে গেছেন মাঠের বাইরে, তার বদলি হিসেবে আধুনিক ক্রিকেটের সর্বশেষ সংযোজন “কনকাশন সাবস্টিটিউট ” এর আওতায় ক্রিকেট ইতিহাসের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে মাঠে আসেন অজি ব্যাটসম্যান মার্নাস লাবুশেন। এর আগে টেস্ট ক্রিকেটে তিনি খেলেছিলেন আট ইনিংস। ২৬৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৯ রানেই দুই উইকেট হারিয়ে ধুকতে থাকা অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ব্যাটিং করতে নামেন “মিঃ কনকাশন” লাবুশেন! কিন্তু শুরুতেই আবারও সেই আর্চারের বিধ্বংসী বাউন্সার আঘাত হানে লাবুশেনের হেলমেটে। কিন্তু স্মিথের মত কোন বিপদ ঘটেনি তার। উল্টো আর্চারের ঐ আঘাত পেয়েই ব্যাট হাতে দলের পরাজয় ঠেকাতে রুদ্রমূর্তি ধারণ লাবুশেনের। নিশ্চিত পরাজয়ের হাত থেকে বাঁচাতে খেললেন ঠিক একশ বলে ৫৯ রানের অসাধারণ এক ইনিংস!

৭ অক্টোবর ২০১৮!
দুবাইয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষিক্ত লাবুশেন প্রথম ইনিংসে খেললেন মাত্র দুই বল, সেই দুইবল মোকাবেলায় মেরেছিলেন ‘ডাক’। ঐ সিরিজের দুটি টেস্টে সর্বসাকুল্যে তার সংগ্রহে ছিল ৮১! তবে ব্যাট হাতে তেমন কিছু করতে না পারলেও তার লেগ স্পিনে বোলিংয়ে অবশ্য সাতটি
উইকেট পেয়েছিলেন।তবে সকাল দেখেই কি সবসময় দিন কেমন যাবে বলে যায় !? যায় না তাই না?

লাবুশেন তার ক্যারিয়ারের শুরুতে, যখন স্মিথ নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ব্রাত্য, সেসময় তিনি আটইনিংসে ২৬.২৫ গড়ে করেছিলেন মোটে ২১০ রান!
কিন্তু স্মিথের কনকাশন বদলি হয়ে খেলতে নামার পর থেকেই তিনি দুর্বার। পরের পনের ইনিংসে ৮৩.২৭ গড়ে করে ফেলেন আরো ১২৪৯ রান! চৌদ্দ টেস্টের ক্যারিয়ার তাই এরই মধ্যে আলো ঝলমলে। ২৩ ইনিংসে ৬৩.৪৩ গড়ে ১৪৫৯ রান, করে নিয়েছেন ডাবল সেঞ্চুরিও। তাই সৎ সঙ্গে বদলে গেছে লাবুশেনের ক্যারিয়ার, তাই না?

২০১৮ শেফিল্ড শিল্ডের জন্যে বর্ষসেরা খেলোয়াড় হিসাবে মনোনীত হন মারনাস লাবুশেন।
২০১৯ সালে কাউন্টি ক্রিকেটে গ্লামারগনের হয়ে এক মৌসুমে সহস্রাধিক রান করায় জায়গা পান অ্যাশেজ সিরিজের দলে। ভাগ্গিস পেয়েছিলেন!
টেস্ট ইতিহাসের পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রতিপক্ষের এক ইনিংসে সংগৃহীত রানের চেয়ে উভয় ইনিংসে দুইবার সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হন!
গত বছর অস্ট্রেলিয়ার সেরা টেস্ট ক্রিকেটারের খেতাব উঠেছিল লাবুশেনের হাতেই!
ছিলেন ২০১৯ সালের সর্বোচ্চ টেস্ট রান সংগ্রাহক।
বর্তমানে আইসিসি টেস্ট র‍্যাংকিংয়ে ব্যাটসম্যানদের তালিকায় ৩ নম্বরে আছেন লাবুশেন!
টেস্ট ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গড়ের মালিক তিনি, আছেন ডন ব্র্যাডম্যানের পিছনে!

অজিদের বিখ্যাত টেস্ট দলের অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে যাওয়া লাবুশেন ওয়ানডেতেও করেছেন দুর্দান্ত শুরু। এবছর ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেক হওয়া লাবুশেন সাত ম্যাচে ৫০.৮৩ গড়ে করেছেন ৩০৫ রান! সাথে আছে একটি শতক ও দুটি অর্ধশতক।

শুভ জন্মদিন টেস্ট ক্রিকেটের নতুন পোস্টের বয়! ১৯৯৪ সালের আজকের এই দিনে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্লার্কশড্রপে জন্মগ্রহণ করেন লাবুশেন।
টেস্ট ক্রিকেটের মজা এত বাড়িয়ে দেয়া লাবুশেনকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা!