লজ্জার পরাজয়, প্রাপ্তি একটাই জার্সি নাম্বার ২৯

0
361

টানা ১৮ ম্যাচ পর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে জয় রথ থামলো বাংলাদেশের। হারারেতে তিন ম্যাচ সিরিজের ২য় টি-টুয়েন্টি তে ২৩ রানের বড় জয় পেলো জিম্বাবুয়ে। তাদের এ জয় দরকার ছিল তারা সবসময় এমন মূহুর্ত গুলো পায় না বটে আজ আর সুযোগ হাতছাড়া করেনি তারা। বাংলাদেশের জয় রথ থামানোর সবচেয়ে বড় অস্ত্র ছিলো মাসাকাদজা ও লুক জঙ্গয়ে।

বাংলাদেশকে ২৩ রানে হারিয়ে ১-১ এ সমতায় ফিরেছে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল। বাংলাদেশের ব্যাটিং অর্ডার ধ্বসিয়ে দেওয়া ওয়েলিংটন মাসাকাদজা ও লুক জঙ্গয়ে ৩ টি করে উইকেট নেন। অভিষিক্ত শামীম হোসেন পাটোয়ারী ১৩ বলে ২৯ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন  ২৫ জুলাই সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে মুখোমুখি হবে দুই দল।

জিম্বাবুয়ের দেওয়া ১৬৭ রান তাড়া করতে নেমে প্রথম দুই ওভার ভালো ভাবে কাটিয়ে দিতে পারলেও ব্লেসিং মুজারবানির করা তৃতীয় ওভারের ৫ রান করে বোল্ড হয়ে যান নাঈম শেখ, চতুর্থ বলে এবার মুজারবানির শিকার আরেক ওপেনার সৌম্য সরকার। আগের ম্যাচে দুজনেই ফিফটি পেলেও আজ (শুক্রবার) ১৪ রানেই দুজনে ফিরে যান ড্রেসিং রুমে।

তৃতীয় উইকেটে দলের বিপদ কাটানোর চেষ্টা করেন মাহেদি হাসান ও সাকিব আল হাসান। তবে ১২ রান করে সাকিবেও ফেরত যেতে হয় ভাঙে ২৮ রানের জুটি। তারপর ১ রানের ব্যবধানে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও তিনে নামা মাহেদি হাসান আউট হলে ৫৩ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে পরাজয়ের শঙ্কায় পড়ে যায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।

দিনটি ছিলো না টাইগারদের রীতিমতো ধসে যাওয়া মিডেল অর্ডার দেখে বাকিরা আর ধীর গতিতে খেলার সুযোগ পাননি যেখানেই শট খেলেছেন ধরা পড়েছেন ফিল্ডারের হাতে। প্রায় দিশে হারা ছিলো বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং লাইন আপ।

এরআগে টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে তাসকিন আহমেদের প্রথম ওভারে ৪ রান নেন দুই ওপেনার ওয়েসলি মাধেভারে ও টাডিওয়ানাশে মারুমানি, মাহেদি হাসানে করা দ্বিতীয় ওভারের প্রথম দুই বলেই ১ চার ও ১ ছক্কা মেরে দারুণ কিছুরই ইঙ্গিত দেন মাধেভারে।

প্রথম ওভারে খরুচে হলেও পঞ্চম বলে ৩ রান করা মারুমানিকে ফিরিয়ে বাংলাদেশকে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেন মাহেদি হাসান। দ্বিতীয় উইকেটে দারুণ ছন্দে থাকা রেজিস চাকাভাকে নিয়ে ২৭ রান যোগ করেন ওয়েসলি মাধেভারে, শরিফুল ইসলাম ও মাহেদি হাসানের ভুল বোঝাবুঝিতে ক্যাচ দিয়েও বেঁচে যান চাকাভা।
একবার জীবন পেলেও এদিন ইনিংস লম্বা করতে পারেননি চাকাভা, সাকিব আল হাসানের বলে শরিফুল ইসলামের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন তিনি। ১৪ রান করা রেজিস চাকাভাকে ফিরিয়ে টি-টোয়েন্টিতে সোহেল তানভিরকে টপকে পঞ্চম সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রাহক হয়েছেন সাকিব।

৪২ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারানোর পর ওয়েসলি মাধেভারে ও ডিওন মেয়ার্সের ব্যাটে বড় স্কোরের পথেই এগিয়ে যাচ্ছিলো জিম্বাবুয়ে। এর মধ্যে টি-টুয়েন্টি ক্যারিয়ারের তৃতীয় ফিফটি পূর্ণ করেছেন মাধেভারে। ২৬ রান করা ডিওন মেয়ার্সকে ফিরিয়ে ৫৭ রানের জুটি ভাঙেন শরিফুল ইসলাম।

একপাশে মাধেভারে দারুণ ব্যাটিং করলেও সুবিধা করতে পারেননি অধিনায়ক সিকান্দার রাজা‌ ৪ রান করে সৌম্য সরকারের থ্রুয়ে রান আউটে ফিরেন তিনি। ওয়েসলি মাধেভারে ৫৭ বলে ৫ চার ও ৩ ছক্কায় ৭৩ রান করে আউট হলে বড় স্কোরের সম্ভাবনায় বড়সড় ধাক্কা খায় জিম্বাবুয়ে।

তবে শেষ দিকে রায়ান বার্লের ১৯ বলে ২ টি করে চার ও ছক্কায় ৩৪ রানের অপরাজিত ইনিংসে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৬৬ রানের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ পায় জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশের হয়ে শরিফুল ইসলাম ৩ টি, সাকিব আল হাসান ও মাহেদি হাসান ১ টি করে উইকেট নেন।

বাংলাদেশের হার নিশ্চিত হয় দলীয় ৬৮ রানে নুরুল হাসান সোহান আউট হয়ে গেলে, অভিষিক্ত শামীম হোসেন পাটোয়ারী ও আফিফ হোসেন সপ্তম উইকেটে ৪১ রান যোগ করলেও সেটা শুধু পরাজয়ের ব্যবধানই কমিয়েছে। ম্যাচে একমাত্র প্রাপ্তি বাংলাদেশের জন্য শামীম হোসেন। কঠিন চাপের মুখেও মাত্র ১৩ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় ইনিংস সর্বোচ্চ ২৯ রান করেন তিনি। ২৯ নাম্বার জার্সি তে তার অভিষেক ম্যাচে ঝড় তোলা এই ২৯ রান বাঙালি ম্যাচ হেরে গেলেও তাকে মনে রাখবে সেই যেনো একমাত্র প্রাপ্তি আজকের ম্যাচের।
বাংলাদেশ দল ধুকতে ধুকতে ১৪৩ রানে থামে।জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল ২৩ রানের জয় পায়। মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন ১৯ রান করেন।

স্বাগতিকদের হয়ে ৩ টি করে উইকেট নিয়েছেন ওয়েলিংটন মাসাকাদজা ও লুক জঙ্গয়ে, ২ টি করে উইকেট পেয়েছেন ব্লেসিং মুজারবানি ও টেন্ডাই চাতারা।