শ্রীলঙ্কা সফরের পূর্বে বাংলাদেশর প্রস্তুতির যথেষ্ট সুযোগ পাবে মমিনুল হক

0
1438

করণাভাইরাস মহামারীজনিত কারণে প্রায় পাঁচমাস ধরে বাংলাদেশের সব ধরনের ক্রিকেটিং কর্যক্রম বনূ থাকা সত্ত্বেও, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আসন্ন টেস্ট সিরিজের প্রস্তুতি নিতে বাংলাদেশ দলের যথেষ্ট সম নির্ধারিত য় থাকবে বলে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক। শ্রীলঙ্কা সিরিজের প্রস্তুতি উপলক্ষ্যে শনিবার ব্যাক্তিগত ভাবে যারা প্রশিক্ষণে রোগ দিয়েছেন তাদের মধ্যে মুমিনুল ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ ছিলেন।

কোভিড -১৯ পরিস্থিতিতে দলের অনুশীলন বন্ধ থাকার কারনে জুলাই-আগস্টে তিনটি টেস্টের শ্রীলঙ্কা সফর নির্ধারিত সময়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়েছিল। বিসিবি কর্মকর্তাদের মতে, সবকিছু পরিকল্পনা অনুযায়ী চললে এখন অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে টেস্ট সিরিজটি শুরু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তারা এখন শ্রীলঙ্কা সরকার এবং ঐ দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রয়োজনীয় অনুমোদনের জন্য অপেক্ষা করছে যা ভ্রমণের জন্য তাদের ছাড়পত্র আবশ্যক। এই সিরিজটি ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পরে বাংলাদেশের মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকে সমস্ত ক্রিকেটিং কার্যক্রম স্থগিত করার পরে প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে বাংলাদেশের প্রত্যাবর্তনের প্রথম সিরিজ।

অন্য কিছু ক্রিকেট দেশ কিছুদিন আগে তাদের ক্রিকেট কার্যক্রম শুরু করলেও বাংলাদেশ এ ক্ষেত্রে তেমন অগ্রগতি করতে পারেনি। বিসিবি ভার্চুয়াল সভার মাধ্যমে ৩৫ জন ক্রিকেটারের সম্মতি নেওয়ার পর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ২৬ জুলাই থেকে খেলোয়াড়দের পৃথক প্রশিক্ষণ সেশনের ব্যবস্থা করেছে। এর পূর্বে বোর্ড যে কোন ধরনের লোক সমাগমের বিপক্ষে ছিল কিন্তু বর্তমানে সেই অবস্থান কিছুটা শিথিল করেছে।

যদিও মাত্র ১০ জন ক্রিকেটার ঈদ উল আযহার বিরতির পূর্বে ব্যক্তিগত প্রশিক্ষণ শিবিরে যোগ দিয়েছিলেন। যদিও গত শনিবার ভিন্ন চিত্র ছিল ঢাকা, রাজশাহী, খুলনা, চাট্টোগ্রাম ও সিলেট – পাঁচটি পৃথক ভেন্যুতে শনিবার থেকেষ শুরু হওয়া দ্বিতীয় পর্বের প্রশিক্ষণ শিবিরে আরো ক্রিকেটাররা অনুশীলন করেন।

স্বাগতিকদের দ্বারা ভ্রমণ সূচি চূড়ান্ত হওয়ার পর আগামী দিনগুলিতে শ্রীলঙ্কা সফরের পূর্বে তাদের প্রস্তুতি ক্যাম্প শুরু করার সম্ভাবনা রয়েছে। মমিনুল যদিও মনে করেন তাদের পূর্ণ ছন্দে ফিরে পেতে খুব বেশি সময় লাগবে না এবং মনে করেছেন যে প্রস্তুতি নেবার যথেষ্ট সময় রয়েছে।

মমিনুল জানান, প্রশিক্ষণ সেশনে প্রথম দিন হওয়ায় সব কিছু তার কাছে নতুন মনে হচ্ছে। অনেকটা সময় পর ফিরতে পেরে তিনি বেশ আনন্দিত এবং তিনি ছন্দে ফিরতে বেশ কিছুদিন সময় লাগবে। নেব, “মুমিনুল বলেন শনিবার শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে তাঁর প্রশিক্ষণ শেষে বলেন ,”আমি ক্রিকেটটি খুব খারাপভাবে মিস করছিলাম এবং অন্যদের খেলা দেখতে খারাপ লাগছে তবে আমিও আশাবাদী আমরাও শিঘ্রই খেলায় ফিরতে পারব।

তিনি আরো বলেন “আমার কাছে মনে হয়েছে যে যখন আমরা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরব, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে আমরা আমাদের প্রস্তুতি নিতে পর্যাপ্ত সময় পাব। অনুশীলন ম্যাচগুলির পাশাপাশি আমরা অনুশীলনও করার মাধ্যমে আমাদের জন্য ভাল প্রস্তুতি হবে এবং আমরা পরিকল্পনা করছি আসন্ন টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে পুরোপুরি প্রস্তুতি শেষ করার জন্য।”

মুমিনুল আরো বলেন যে লকডাউন খেলোয়াড়দের তাদের খেলা নিয়ে বিশ্লেষণ করার যথেষ্ট সময় দিয়েছে এবং তাদের মানসিকতা এবং খেলাকে আরো উন্নত করার জন্য প্রয়োজনীয় পরিকল্পনাগুলি নোট করে নিয়েছে। তিনি বলেন, “লকডাউন চলাকালীন সময়ে আমাদের ক্রিকেট নিয়ে ভাবার সুযোগ পেয়েছি কারণ আমাদের করার মতো কোনও কাজ ছিল না।” “আমাদের মধ্যে অনেকে ফিটনেস নিয়ে কমবেশি কাজ করেছে তবে তাদের খেলার মানসিক দিক নিয়ে কাজ করেছেন। আমরা কীভাবে আমাদের খেলাকে দক্ষতার সাথে আরো কিভাবে উন্নত করতে পারি তার প্রযুক্তিগত ও কৌশলগত দিক নিয়ে কোচদের সাথে কাজ করেছি।

“আমার কাছে মনে হচ্ছে আমরা এই বিরতির সময় আমরা যে কাজ করেছি তার মূল্যয়ন যদি আমরা ভাল করতে পারি তাহলে তা সবার ব্যক্তিগত উন্নয়নে কাজ দিবে। তিনি আরো বলেন আমরা যদি খেলতাম তবে মাঠের বাইরে থেকে নিজেদের দিকে ঐভাবে থেকে আমাদের নিজের দিকে ঐ ভাবে খেয়াল করে কাজ করতে পারতাম না।