সাকিব আল হাসান শ্রীলঙ্কা সফরে দলে যোগ দিতে পারেন।

0
7932

সাকিব আল হাসানের ক্রিকেটে নিষেধাজ্ঞা ২৯ শে অক্টোবর ২০২০ শেষ হওয়ার পরে বাংলাদেশ দলে ফিরতে পারে, শ্রীলঙ্কা সফর হতে পারে তার সম্ভাব্য প্রত্যাবর্তনের জায়গায। বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কা সফর মোটামুটি নিশ্চিত এবং এই সফরের সময়সূচি কীভাবে ঠিক করা হচ্ছে তা নিশ্চিত হলে সাকিব কমপক্ষে প্রস্তাবিত তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে অংশ নেবেন এমনটা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

এসএলসি-র(শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট) প্রধান নির্বাহী মোহন ডি সিলভার মতে, দুটি বোর্ডের আলোচনা সাপেক্ষে বাংলাদেশের দেশ ছাড়ার সম্ভাব্য তারিখ সম্পর্কে একটি সমঝোতায় পৌঁছেছে, তবেআসল সফরের সময়সূচি ছাড়াও বিসিবি অতিরিক্ত একটি তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের অনুরোধ করার পরে এটি দুটি বা তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ হবে কিনা তা নিয়ে তারা এখনও আলোচনায় চলছে।

সাকিব আগামী মাসে থেকে বাংলাদেশের বৃহত্তম ক্রীড়া ইনস্টিটিউট বিকেএসপিতে প্রশিক্ষণ নিবেন, তাই তার পুরো ফিটনেসের প্রতি এবং অগ্রগতির দিকে বাংলাদেশ দলের সজাগ দৃষ্টি থাকবে।

বাংলাদেশর প্রধান কোচ রাসেল ডোমিংগো বলেছেন যে, ‘সাকিবের প্রত্যাবর্তন নির্ভর করবে তার ফিটনেসের মাত্রা এবং সম্ভবত কিছুটা ম্যাচ খেলার পর তার পারর্ফম এর উপর। তবে কোভিড -১৯ মহামারীর জন্য তিনি শাকিবের দীর্ঘ এক বছরের ক্রিকেট থেকে বিরতি এবং বর্তমান বাংলাদেশের খেলোয়াড়দেরও অন-ফিল্ড অ্যাকশন ছাড়াই ছয় মাসে কেটে গিয়েছে দুটো বিষয় পজেটিভ ভাবে দেখছেন।

তিনি মনে করেন সাকিবের এক বছরের বাইরে থাকা আর দলের অন্য অন্য খেলোয়াড় যারা ছয় বা সাত মাস ধরে খেলার বাইরে রয়েছে, তাদের মধ্যে খুব বেশি পার্থক্য নেই। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন সব খেলোয়াড়রা  ফিট রয়েছে। অবশ্য খেলোয়াড়দের খেলায় অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে ফিটনেস এর মানদণ্ডের সবার অর্জন করতে হবে‌ । সাকিবের পাশাপাশি সকল খেলোয়াড়ের জন্য কিছুটা সময় ফিটনেস পদ্ধতি আয়োজন করতে হবে। কোনও ধরণের ক্রিকেট ছাড়াই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রবেশ করা খুব কঠিন। তিনি মনে করেন কিছু ম্যাচ খেলার সুযোগ খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা করা উচিত। সাকিব একজন বিশ্বমানের খেলোয়াড় তাই তার ক্রিকেটে ফিরে আশাটা শুধুমাত্র সময়ের ব্যাপার তবে ফিটনেস একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

ডোমিংগো বলেন যে সাকিবকে নিষেধাজ্ঞা প্রাপ্ত ক্রিকেটার হিসাবে তার বেসরকারি ক্রিকেট ম্যাচ খেলতে হবে, তাই পরবর্তী কয়েক মাসের সময় তার ফিটনেস ও নেট অনুশীলনের উপর অনেক কিছু নির্ভর করবে। “এটি এমন একটি বিষয় যা আমাদের নির্বাচকদের সাথে আলোচনা করতে হবে। ২৯ শে অক্টোবরের আগে কোনও অফিসিয়াল খেলা খেলতে পারবেন না, তাই তিনি যে সমস্ত খেলাগুলি খেলবেন তা অনানুষ্ঠানিক খেলা হতে পারে। এটি আন্তঃ স্কোয়াডের খেলা হতে পারে তবে এটা যদি তাকে এটি খেলতে দেওয়া হয় তবে তার নিশ্চিত করা।

সাকিবকে নিশ্চিত করতে হবে যে তিনি ফিট আছেন এবং তিনি শটস খেলা এবং কিছু বলিং করার পর তা বোঝা যাবে।  শ্রীলঙ্কা রওনা হওয়ার দিন মোটামুটি নিশ্চিত তাই সব স্কোয়াড একত্রিত হয়ে কাজ করা ভাল হবে। এখনও কিছুটা সময় বাকি আছে সাকিবের নিষেধাজ্ঞা আড়াই মাসের মধ্যে শেষ যাবে। সাকিব যখন ফিট এবং এভেইলেভেল হবেন তহন অবশ্যই তিনি দলের সাথে যোগ দিবে।