১২ জন নিয়ে খেলেছে জিম্বাবুয়ে

0
462

হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে আজ (শুক্রবার) জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের ২য় টি-টোয়েন্টি খেলতে নামে বাংলাদেশ। প্রথম টি-টোয়েন্টিতে আত্মবিশ্বাসে ভরপুর বাংলাদেশ যেনো হারিয়ে যায় ২য় টি-টোয়েন্টি তে।

গতকালকের ধীরগতিতে শুরু করার পর সবাই ভেবেছিলো হেরে যাবে দল পারবে না তামিম, মুশফিক ছাড়া কিন্তু ঝলক দেখিয়ে ম্যাচ টেনে বের করেছিলো তরুণরা আজ যে তরুণ থেকে শুরু করে পঞ্চপান্ডবের দুই যোদ্ধাও ছিলো বর্ণহীন। অবশেষে ২৩ রানে হারের স্বাদ গ্রহন ও করলো বাংলাদেশ । তবে আশ্চর্যকর এক ঘটনা ঘটলো খেলা চলাকালীন সময় মাঠেই।

প্রথমে জিম্বাবুয়ে ব্যাট করে ১৬৭ রানের টার্গেট দেয় তারপর ১৬৭ রান তাড়া করতে নেমে গতকালকের ওপেনিং রেকর্ড করা জুটি সৌম্য ও নাঈম পাওয়ার প্লে শেষ হওয়ার আগেই পেভিলিয়নে ফেরত যান। এরপর একের পর এক উইকেট যাত্রা চলতেই থাকে জিম্বাবুয়ে বোলাররা সাফল্য পেতেই থাকে।

দল যখন ১৪ রানে প্রথম উইকেট হারায় কোনো ব্যাটসম্যান আর ঠান্ডা মাথায় খেলার চেষ্টাই করেনি অবশেষে শামীম হোসেন একওভারে ১৬ রান তুলে জয়ের সম্ভাবনা জাগান কিন্তু বেশিক্ষণ এই জয়ের সম্ভাবনা টিকে না কারণ ২৯ রান করেই ফিরে যান তিনি এরপর আগমন হয় পেসার অলরাউন্ডার সাইফুদ্দিনের তিনি আফিফের সঙ্গে জুটি বাঁধার চেষ্টা করলেও আফিফ জুটি বাঁধতে নারাজ তিনি ২৫ বলে ২৪ রান খেলে ফেরত গেলেন।

তারপর তাসকিন মাঠে নামলেন তিনি স্ট্রাইক রোটেট করার পর সাইফুদ্দিন যখন স্ট্রাইকে তখন চলে ১৮ তম ওভার, জিম্বাবুয়ের বলার বল করার পর সাইফ ব্যাট উপরে উঠিয়ে খোঁচা মেরে দেন মূলত এক রান নেওয়ার জন্য তখনই স্টাম্প বেল পড়ে যাওয়ার শব্দ হয় ক্রিজে থাকা সাইফুদ্দিন বাদে সবাই ভাবতে থাকে হিট আউট তারপর রিকেপ করে দেখা যায় সাইফুদ্দিনের ব্যাট বা পা কোনো কিছুই লাগে নি স্টাম্পে তিনি যথেষ্ট এগিয়ে ছিলেন সামনের দিকে। তবে এই স্টাম্প বেলটা একাই পড়েছিলো তখনই কমেন্ট্রি বক্স থেকে শামীম হোসেন বলেন “জিম্বাবুয়ে কি ১২ জন প্লেয়ার নিয়ে খেলেছে নাকি, এর জন্যই যেখানেই বাংলাদেশী ব্যাটসম্যানরা শট খেলে সেখানেই আউট”

শামীম হোসেনের এই সন্দেহ যৌক্তিক না হলেও হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠ কি ভৌতিক? তবে বাংলাদেশের এই হারের দায়ভার কার?