২০২৩ বিশ্বকাপের পাকিস্তানের ম্যাচগুলির আয়োজক বাংলাদেশ!

0
435

২০২৩ এর ওডিইআই বিশ্বকাপের আয়োজক ইন্ডিয়া। এখানে এখন অনেক বড় একটা প্রশ্ন এসে দাঁড়িয়েছে যে তাহলে পাকিস্তান তখন কি করবে? ভারত আর পাকিস্তান এই দুই দেশের রাজনৈতিক বৈরীতা তাদের সূচনা লগ্ন থেকেই। গেল সপ্তাহে আইসিসির বৈঠকে এ সংক্রান্ত আলোচনা হয়েছে যেখানে বলা হয়েছে পাকিস্তান তাদের ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপের ম্যাচ গুলো বাংলাদেশে খেলতে পারে।

এক্ষেত্রে হাইব্রিড এশিয়া কাপ মডেলটিকে একটি সমাধান হিসাবে দেখা হচ্ছে। এবারের এশিয়া কাপের আয়োজক পাকিস্তান কিন্তু ভারত পাকিস্তানে খেলতে আসবে না, তাদের খেলা হবে নিরপেক্ষ ভেন্যুতে।

গেল সপ্তাহে দুবাইতে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের সভায় এ সংক্রান্ত বিষয়ে আলোচনা হয়। যেখানে এশিয়া কাপে ভারতের উপস্থিতি এবং পাকিস্তানের বিশ্বকাপে খেলার বিষয় উঠে এসেছে। যেখানে উভয় দলের ভিন্ন ভিন্ন ভেন্যুতে খেলা কেবল একটি বিকল্প পন্থা হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে এবং বিষয়টি নিয়ে কোনও আনুষ্ঠানিক আলোচনা হয়নি। তবে পিসিবি বলেছে যে এশিয়া কাপে ভারতের পাকিস্তানে না খেলা আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে নিঃসন্দেহে প্রভাব ফেলবে। কেননা আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০২৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত হবে।

এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল নীতিগতভাবে একটি হাইব্রিড মডেলে সম্মত হয়েছে। এবারের পাকিস্তানে আয়োজিত টুর্নামেন্টটিতে ভারতের ম্যাচগুলি একটি নিরপেক্ষ ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হবে। যদিও তা এখন পর্যন্ত চূড়ান্ত করা হয়নি। বিকল্প ভেন্যু গুলির মধ্যে সংযুক্ত আরব আমিরাত, ওমান, শ্রীলঙ্কা বা এমনকি ইংল্যান্ডের নাম ও রয়েছে। ভারত-পাকিস্তান খেলাগুলি নিরপেক্ষ ভেন্যুতে আয়োজিত হবে সেইসাথে যদি ভারত ফাইনালে পৌঁছায় তাহলে সেটাও নিরপেক্ষ ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হবে।

পিসিবি অনানুষ্ঠানিক ভাবে প্রস্তাব করেছিল এশিয়া কাপের পদ্ধতি বিশ্বকাপেও প্রয়োগ করা যেতে পারে। বিশ্বকাপ ৫:অক্টোবর থেকে ভারতের দশটি ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। তবে পিসিবি আপাতত বলে আসছে যে তাদের অংশগ্রহণ বা কি ভাবে অংশ নিতে পারে এটা নির্ভর করছে এশিয়া কাপে ভারত কি সিদ্ধান্ত নেয় তার উপর। বিশ্বকাপের সময়ে বাংলাদেশকে বিকল্প ভেন্যু হিসাবে প্রস্তাব করা হয়েছে যদিও তা এখনো বিভিন্ন সিদ্ধান্তের সাথে জড়িত রয়েছে।

গত বছর, এশিয়া কাপ – সংযুক্ত আরব আমিরাতে আয়োজন করা হয়েছিল, যদিও হোষ্ট করার কথা ছিল শ্রীলংকার। ২০১৮ সালে ঠিক এক ইশ্যুতে এশিয়া কাপ ভারত থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে স্থানান্তরিত হয়েছিল।